খেজুরের উপকারিতার Best 10 টি দিক । ইফতারে খেজুরের উপকারিতা

খেজুরের উপকারিতা


জেনে নিন খেজুরের উপকারিতা, সুস্বাদু এই ফলটি আমাদের সবারই পরিচিত, খেজুরের উপকারিতা অনেক। খেজুরে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, উপকারি তেল, ক্যালসিয়াম, আয়রন, সালফার, পটাশিয়াম, ফসফরাস, কপার ইত্যাদি খনিজ পদার্থ রয়েছে।

অতীতে মুসুলমান সম্রাটরা যুদ্ধের সময় সেনাদের যে খাওয়ার দিতেন তার মধ্যে প্রধান ছিল এই খেজুর। তারা মাইলের পর মাইল হাঁটত ও যুদ্ধ জয় করতো এই খেজুর আহার করে।

সুস্থ সবল শরীরের জন্য খেজুরের উপকারিতা হল অতুলনীয় । প্রতিদিন আমরা যদি সকাল ও বিকাল ৪টি থেকে ৫ টি খেজুর খাই ও ইফতারের সময় খাই অনেক উপকারে হবে । অনেক রোগ থেকে মুক্তি লাভের উপায় এই খেজুর । তাহলে আমরা এখন খেজুরের উপকারিতা গুলো কি তা এক এক করে জেনে নেবো ।

খেজুরের উপকারিতার গুলো


 ➡ কোষ্ঠকাঠিন্যঃ

কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যাটি প্রায় সবারই কম বেশি হয়ে থাকে । যাদের এই সমস্যাটি আছে তারা প্রতি রাতে ঘুমানোর আগে কয়েকটি খেজুর খান, তার পর এক গ্লাস জল খেয়ে নিন । এটি নিয়মিত কিছুদিন করুন দেখবেন আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য কমে গেছে ।

 ➡ উচ্চ রক্তচাপঃ

খেজুরের মধ্যে রয়েছে অল্প পরিমাণ সোডিয়াম । তাই নিয়মিত খেজুর খেলে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে এই খেজুর সাহায্য করে থাকে ।

 ➡ হার্টের ক্ষমতাঃ

খেজুর ডায়টারি ফাইবার সমৃদ্ধ হওয়ার কারণে নিয়মিত খেজুর খেলে শরীরের ভিতর ‘এল ডি এল’ যা খারপ কোলেস্টেরল এর মাত্রা কমিয়ে দিতে থাকে । ফলে হঠাৎ করে হার্ট অ্যাটাক এর ঝুঁকি কমে যায় । সেই সাথে খেজুরে থাকা উপস্থিত পটাশিয়াম যে কোনো রকমের হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বা সম্ভাবনা কমিয়ে দেয় ।

 ➡ চোখ ভালো রাখেঃ

খেজুরের মধ্যে রয়েছে জিক্সাথিন ও লিউটেইন । এগুলো চোখের ম্যাকুলার ও রেটিনাকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে থাকে ।

 ➡ ওজন ঠিক রাখেঃ

খেজুরে অনেক পুষ্টিগুণ বৃদ্যমাণ । খেজুর খেলে চিনি খাওয়ার ইচ্চা পুরণ হয়ে যায় । তবে খেজুর আমাদের শরীরের কোন ওজন ‍বৃদ্ধি করে না ।

 ➡ শক্তি যোগায়ঃ

খেজুরের ভেতরে থাকা প্রাকৃতিক সুগার রক্তে মেশার সাথে সাথে এমন উপকারি কাজ শুরু করে যে শরীর উৎফুল্ল্য হয়ে উঠে। সেই সাথে মানসিক ক্লান্তি দুর করে থাকে ।

 ➡ হাড়ের ঘাটতি কমায়ঃ

খেজুরে থাকা খনিজ পদার্থ ও ভিটামিন রয়েছে যা হাড়কে শক্ত ও মজবুত করে তোলে । যা বয়স্ককালে অস্টিওপোরোসিসের মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমিয়ে দেয় ।

 ➡ আয়রনের উৎসঃ

যারা রক্তস্বল্পতায় ভুগছেন , তাদের জন্য খেজুর খাওয়া খুবই প্রয়োজন । ১০০ গ্রাম খেজুরে ০.০৯ গ্রাম আয়রন থাকে । এটি শরীরের প্রতিদিনের আয়রনের চাহিদা ১১ ভাগ পূরণ করে থাকে । আয়রন রক্তস্বল্পতার সমস্যা সমাধানে সাহায্য করে । তাই যারা রক্তস্বল্পতায় ভুগছেন তাদের খেজুর খাওয়া অতি প্রয়োজন ।

 💡 মধু ও খেজুরের উপকারিতা

পুরুষের যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে মধু ও খেজুরের জুটি জোড়া মেলা ভার। প্রথমে.৩-৪ টি খেজুরের থেকে বীজকে বের করে সেখানে ২-৩ ফোঁটা মধু দিয়ে ১০-১৫ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন । এবার রাতে খাওয়ার পর খান। এইভাবে ১ মাস খান দেখবেন যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে। বীর্য ধরে রাখার ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে।

 


গত প্রায় ১৫০০ বছর ধরে এই খেজুর নানান উপকারে লাগলেও আজ এই খেজুর স্বাস্থ্য সচেতনদের পছন্দের লিষ্টে স্থান পায়নি। তাই আমরা খেজুরের উপকারিতা জেনে আমাদের খাদ্য তালিকায় স্থান দিই । তবে ইফতারে খেজুর খাওয়া সূন্নত যা রাসূল (সাঃ) প্রতিনিয়ত করেছেন ।

ইফতারে খেজুরের উপকারিতার ১০ টি দিক


এখন আমরা জানব ইফতারে খেজুরের উপকারিতা গুলো, রমজান মাস জুড়েই ইফতারের সাথে সবাই কম বেশি খেজুর খেয়ে থাকি । ইফতারে খেজুরের উপকারিতা অনেক, মুসলিমদের কাছে খেজুর প্রিয় একটি খাবার । তাই রমজান মাসে ইফতারে খাবারের তালিকায় খেজুরের স্থান থাকে সবার আগে ।

খেজুরে আছে অনেক পুষ্টি উপাদান , যা সারদিন রোজা রাখার পরে ইফতারের সময় অনেকটা পুষ্টি ঘাটতি পুরণ করতে সাহায্য করে । খেজুরে অনেক উপাদান রয়েছে যেমন , পানি, খনিজ পদার্থ, শর্করা , আমিষ , আয়রন,ক্যালসিয়াম , ভিটামিন বি-১, ও বি-২ এবং সামান্য পরিমাণে প্রোটিন, সালফার, ম্যাগনেশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ ।

তাই আমাদের প্রতিদিন অল্প হলেও খেজুর খাওয়া উচিত । ইফতারে খেজুরের উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো ।

 ➡ তাছাড়া খেজুরে আরো ১০ টি উপকার রয়েছে তা নিচে দেওয়া হলোঃ-

১. খাদ্যশক্তি বাড়ায় ও দুর্বলতা দূর করে ।

২. হজম শক্তি বর্ধক, যকৃৎ ও পাকস্থলীর শক্তিবর্ধক ।

৩. খেজুর স্নায়ুবিক শক্তি বৃদ্ধি করে থাকে ।

৪. খেজুর শরীরে রক্ত উৎপাদন করে ।

৫. রুচি ‍বৃদ্ধি করে ।

৬. হৃদরোগীদের জন্য খেজুর খুবই উপকারী ।

৭. দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধি করে ।

৮. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ।

৯. খেজুরে রয়েছে ডায়েটরই ফাইবার । যা কোলেস্টেরল থেকে মুক্তি দিয়ে থাকে ।

১০. ফুসফুসের সুরক্ষার পাশাপাশি মুখগহ্বরে ক্যান্সার রোধ করে ।

 ➡ দিনে কয়টা খেজুর খাওয়া উচিতঃ

খেজুরের উপকারিতা বা পুষ্টি গুণ অনেক হলেও সকাল বিকাল ইচ্ছামতো খেজুর খাওয়া উচিত নয়। অতিরিক্ত যে কোনো খাবারই স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ হতে পারে। তাই দিনে ৪-৫টি খেজুর খান এর বেশি না। এতেই এর স্বাস্থ্যকর উপকারিতা গুলো পাওয়া যাবে।

আরও দেখুনঃ খাদ্য ও পুষ্টি সংক্রান্ত আর্টিকেল।।

5 1 vote
Article Rating
Subscribe
Notify of
guest
2 Comments
Oldest
Newest Most Voted
Inline Feedbacks
View all comments
জেনে নিন নারিকেল ও ডাবের পানির উপকারিতা > Best 10 Benefits

[…]  ➡ ৭.ওজন হ্রাস করেঃ নারিকেলের উপকারিতা গুলোর মধ্যে অন্যতম নারিকেল খাওয়ার মাধ্যমে ওজন হ্রাস করা যায় কারণ এতে ফ্যাট থাকে না। এটি খেয়ে পেট পূর্ণ থাকে, যার কারণে বার বার ক্ষুধা থাকে না।  ➡ ৮.অনিদ্রা দূর করেঃ যাদের অনিদ্রা রোগ আছে, রাতে ভালো ঘুম হয়না তাঁরা রাতের খাবারের পরে আধা গ্লাস নরিকেল জল বা ডাবের জল পান করুন। এটি আপনার ভাল ঘুম হতে সাহায্য করবে। এটি একটি ভালো ডাবের পানির উপকারিতা । জানুন ইফতারে খেজুরের বিশেষ উপকারগুলো। […]

Parna
4 months ago

Best blog for health. Carry on.

2
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x